ঢাকাসোমবার , ৬ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আবহাওয়া
  3. আমাদের পরিবার
  4. আর্ন্তজাতিক
  5. ইসলামী জীবন
  6. করোনা আপডেট
  7. খেলাধুলা
  8. চাকরি-বাকরি
  9. জাতীয়
  10. নাগরিক সংবাদ
  11. পাঁচমিশালি
  12. বরিশাল বিভাগ
  13. বাংলাদেশ
  14. বিনোদন
  15. বিশ্ব সংবাদ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পরীক্ষা না হলে অ্যাসাইনমেন্ট ও সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ে মূল্যায়ন

নিজস্ব প্রতিবেদক
জুলাই ১৫, ২০২১ ৭:৩৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আগামী নভেম্বরে এসএসসি ও ডিসেম্বরে এইচএসসি এবং সমমানের পরীক্ষার্থী নেওয়ার চিন্তা রয়েছে সরকারের। যদি পরীক্ষা নেয়া না যায় তবে, অ্যাসাইনমেন্ট ও বিগত পাবলিক পরীক্ষায় প্রাপ্ত ফলের বিষয়ভিত্তিক ম্যাপিং করে ফল প্রকাশ করা হবে।শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি আজ বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন।শিক্ষামন্ত্রী জানান, চলতি বছরের এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট দেয়া হবে। এ ক্ষেত্রে ২০২১ খ্রিষ্টাব্দের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ১২ সপ্তাহে বিভাগভিত্তিক তিনটি বিষয়ে মোট ২৪ টি অ্যাসসাইনমেন্ট করতে হবে। আগামী ১৮ জুলাই থেকে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম শুরু হবে। আর এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ১৫ সপ্তাহে বিভাগভিত্তিক নির্বাচিত তিনটি বিষয়ের ৬টি পত্রে মোট ৩০টি অ্যাসাইনমেন্ট দেয়া হবে। এসব অ্যাসাইনমেন্টের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের শিখন ফল মূল্যায়ন যাচাই করা হবে।ডা. দীপু মনি আরও জানান, করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে এসএসসি ও ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে এইচএসসি পরীক্ষা নেয়ার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। যদি পরীক্ষা না নেয়া যায় সেক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্টের ফল ও সাবজেক্ট ম্যাপিং করে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে।শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আমরা পরীক্ষা নেয়ার পরিকল্পনা করেছি। পরীক্ষাগুলো হবে শিক্ষার্থীদের গ্রুপভিত্তিক নির্বাচিত তিনটি বিষয়ের ওপরে। যদি নির্বাচিত বিষয়ের পরীক্ষাগুলো নেয়া যায় সেক্ষেত্রে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষায় প্রাপ্ত ফলের ভিত্তিতে মূল্যায়ন করা হবে। আর পরীক্ষা নেয়া সম্ভব না হলে শিক্ষার্থীদের সাবজেক্ট ম্যাপিং ও অ্যাসাইনমেন্টের ভিত্তিতে মূল্যায়ন করা হবে।শিক্ষামন্ত্রী বলেন, পরিস্থিতি অনুকূল হলে সীমিত পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে তিনটি বিষয়ে পরীক্ষার ভিত্তিতে, বাকি আবশ্যিক বিষয়গুলোর মূল্যায়ন হবে এসএসসি এবং জেএসসি পরীক্ষার বিষয় ম্যাপিংয়ের মাধ্যমে। আর যদি পরীক্ষা নেয়া সম্ভব না হয় তাহলে অ্যাসাইনমেন্ট ও বিষয় ম্যাপিংয়ের মাধ্যমে মূল্যায়ন করা হবে। অথবা শুধু বিষয় ম্যাপিংয়ের মাধ্যমেও মূল্যায়ন হতে পারে। সেটি পরে জানানো হবে।শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা এবার মূল্যায়নের মাধ্যমেই শিক্ষার্থীদের ফলাফল দিতে চাই। করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হলে খুব অল্প সময়ে পরীক্ষা আয়োজন করা হবে।সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ের বিষয়টি পরিস্কার করেন শিক্ষামন্ত্রী। মন্ত্রী বলেন, এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জেএসসির ফলের ভিত্তিতে ও এইচএসসির পরীক্ষার্থীদের জেএসসি ও এসএসসির ফলের ভিত্তিতে সাবজেক্ট ম্যাপিং করা হবে।সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল উপস্থিত ছিলেন। এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো: মাহবুব হোসেন, কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের সচিব আমিনুল ইসলাম খান।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।