ঢাকামঙ্গলবার , ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আবহাওয়া
  3. আমাদের পরিবার
  4. আর্ন্তজাতিক
  5. ইসলামী জীবন
  6. করোনা আপডেট
  7. খেলাধুলা
  8. চাকরি-বাকরি
  9. জাতীয়
  10. নাগরিক সংবাদ
  11. পাঁচমিশালি
  12. বরিশাল বিভাগ
  13. বাংলাদেশ
  14. বিনোদন
  15. বিশ্ব সংবাদ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মুরাদ হাসানের রাজনৈতিক উত্থান

যুগের কথা ডেস্ক
ডিসেম্বর ৭, ২০২১ ১২:৪৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বিরোধী রাজনৈতিক নেতাদের নিয়ে অশালীন মন্তব্য, এক সুপরিচিত চিত্রনায়িকাকে ধর্ষণের হুমকি এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের সম্পর্কে কুরুচিকর মন্তব্য করার জেরে পদ হারাতে বসেছেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁকে পদত্যাগের নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

এদিকে দলীয় এক অনুষ্ঠানে মুরাদ হাসান এককালে ছাত্রদলের নেতা ছিলেন বলে জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ নিয়ে দলের নেতাকর্মীরাও বেশ অস্বস্তিতে পড়েছেন।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে মুরাদ হাসানের সংক্ষিপ্ত জীবনীর ‘রাজনৈতিক’ পর্বে উল্লেখ করা হয়েছে, রাজনৈতিক জীবনে তিনি ১৯৯৪ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ শাখার কার্যকরী সদস্য, ১৯৯৭ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক, ২০০০ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ শাখার সভাপতি এবং ২০০৩ সালে পঞ্চম কংগ্রেসে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরী সদস্য নির্বাচিত হন।

তবে ছাত্রদলের বেশ কয়েকজন নেতা সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ১৯৯৬-৯৮ সেশনে ছাত্রদলের ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ শাখার প্রচার সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন মুরাদ। ৭১ সদস্যবিশিষ্ট ওই কমিটির সভাপতি ছিলেন ডা. মেহবুব কাদির। তিনি একটি অনলাইন নিউজ পোর্টালকে বলেন, মুরাদ হাসান ১৯৯৩ সাল থেকে ছাত্রদলের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। ১৯৯৬ সালে যখন কলেজ শাখা কমিটি হয়, তখন তিনি প্রচার সম্পাদকের দায়িত্ব পান। ১৯৯৬ সালের শেষ দিকে বা ১৯৯৭ সালের শুরুতে মুরাদ হাসান ছাত্রলীগে যোগ দেন। ওইসময় আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে ছাত্রদলকে হোস্টেল ছাড়া করে ছাত্রলীগ। ছাত্রদলের এই কোণঠাসা পরিস্থিতিতে মুরাদ হাসান ছাত্রলীগে যোগ দেন। পরে তিনি মেডিকেল শাখার সভাপতি হন। নিজেদের গ্রুপে মারামারি করে মুরাদ হাসানের আঙুল কাটা পড়ে, পরে সার্জারি করেন বলেও জানান ডা. মেহবুব কাদির।

বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, ১৯৭৪ সালের ১০ অক্টোবর জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার দৌলতপুর গ্রামে জন্ম মুরাদ হাসানের। তাঁর বাবা মতিয়ার রহমান তালুকদার জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের একজন সংগঠক।

২০০১ সালে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাস করেন মুরাদ। ২০০৫ সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে প্লাস্টিক রিকনস্ট্রাকটিভ সার্জারির ওপর পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন ট্রেনিং শেষ করেন। ২০১১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) থেকে রেডিয়েশন অনকোলজির ওপর এমফিল ডিগ্রি নেন।

১৯৯৪ সালে ছাত্রলীগের ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ শাখার সদস্য হন মুরাদ। ১৯৯৭ সালে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হন। ২০০০ সালে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ শাখার ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন।

২০০৩ সালে আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৩ সালে আওয়ামী লীগের জামালপুর জেলা শাখার সদস্য, ২০১৪ সালে জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এবং ২০১৫ সালে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত হন মুরাদ। ২০১৭ সালে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরী সদস্য নির্বাচিত হন।

২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে জামালপুর-৪ (সরিষাবাড়ী, মেস্টা ও তিতপল্যা) আসন থেকে প্রথমবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন মুরাদ হাসান। ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও নৌকা প্রতীকে জামালপুর-৪ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) এবং বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) আজীবন সদস্য মুরাদ হাসান।

২০১৮ সালে গঠিত আওয়ামী লীগ সরকারে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পান মুরাদ হাসান। ২০১৯ সালের ১৯ মে তৎকালীন সরকারের মন্ত্রিসভায় প্রথম রদবদল আনা হয়। এতে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানকে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।