ঢাকাবুধবার , ২৬শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আবহাওয়া
  3. আমাদের পরিবার
  4. আর্ন্তজাতিক
  5. ইসলামী জীবন
  6. করোনা আপডেট
  7. খেলাধুলা
  8. চাকরি-বাকরি
  9. জাতীয়
  10. নাগরিক সংবাদ
  11. পাঁচমিশালি
  12. বরিশাল বিভাগ
  13. বাংলাদেশ
  14. বিনোদন
  15. বিশ্ব সংবাদ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চতুর্থ ধাপের ইউপি ভোট: ২০ উপজেলায় সহিংসতার শঙ্কা

ঢাকা অফিস
ডিসেম্বর ২৩, ২০২১ ৮:৩৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

চতুর্থ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে ২০ উপজেলায় সহিংসতার আশঙ্কা করছে মাঠ প্রশাসন। উপজেলাগুলোতে অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। নির্বাচন কমিশন (ইসি) সূত্র জানিয়েছে, সম্প্রতি জেলা প্রশাসন থেকে ২০টি উপজেলার জন্য অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট চাওয়া হয়। কোথাও দুজন, কোথাও তিনজন, এমনকি কোথাও পাঁচজন অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের অনুমোদন দেওয়া হয়। এর আগে সকল উপজেলার জন্য চারজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের সিদ্ধান্ত দেয় ইসি।
ইসির নির্বাচন পরিচালনা শাখার উপ-সচিব মো. আতিয়ার রহমান ইতোমধ্যে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসককে এ সংক্রান্ত চিঠি পাঠিয়েছেন। এতে বলা হয়েছে-চতুর্থ ধাপের ইউপি নির্বাচনের জন্য প্রতি উপজেলায় চারজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা জন্য নির্দেশনা দিয়েছিলেন কমিশন। কিন্তু জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে ২০টি উপজেলায় অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করার জন্য সিদ্ধান্ত দিয়েছে কমিশন।
যেসব উপেজলায় অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ হচ্ছে সেগুলো হলো, নাটোরের সিংড়া (তিনজন); কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর, কটিয়াদী ও ভৈরবে (তিনজন করে নয়জন); মৌলভীবাজার সদর ও রাজনগর (তিনজন করে ছয়জন); কুড়িগ্রামের উলিপুর ও রাজারহাট (তিনজন ও দুজন); দিনাজপুরের খানসামা, কাহারোল ও বীরগঞ্জে (একজন, একজন ও তিনজন); মুন্সিগঞ্জের সিরাজদীখান ও লৌহজং (পাঁচজন ও চারজন); লক্ষ্মীপুর সদর (তিনজন); পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী ও কলাপাড়া (তিনজন করে ছয়জন); গাজীপুর সদর ও কালীগঞ্জ (দুজন করে চারজন) এবং সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর ও চৌহালী (দুইজন করে চারজন)।
ইতোমধ্যে তিন ধাপে ২ হাজার ২২৬টি ইউপি নির্বাচন সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। এতে নির্বাচনী সহিংসতায় ৫০ জনের মতো নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছে তিন শতাধিক ব্যক্তি। মাঠ প্রশাসন থেকে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘনের কঠোর হওয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনে সুপারিশ করেছে। এছাড়া প্রয়োজনে অতিরিক্ত ফোর্স ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন। যার ধারাবাহিকতায় ওই ২০ উপজেলায় নিয়োজিত থাকছেন অতিরিক্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।
গত তিন ধাপের ভোটের পরিস্থিতি পর্যালোচনা করলে দেখা যায় ভোটের দুদিন আগে থেকে দুদিন পর পর্যন্ত সহিংস ঘটনাগুলো ঘটে থাকে। তাই নির্বাচন কমিশনও ভোটের দুদিন পর পর্যন্ত বিভিন্ন বাহিনী ও ম্যাজিস্ট্রেটদের নিয়োজিত রাখছে ভোটের মাঠে।
ইসির যুগ্ম সচিব এসএম আসাদুজ্জামান জানিয়েছেন, ২৬ ডিসেম্বর চতুর্থ ধাপে ৫৮ জেলার ১১৮টি উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এতে কেন্দ্র প্রতি মোতায়েন থাকবে পুলিশ, আনসার, অঙ্গীভূত আনসারের ২২ জনের ফোর্স।
এছাড়া পুলিশ, এপিবিএন ও ব্যাটেলিয়ন আনসারের একটি করে টিম প্রতি ইউপিতে মোবাইল ফোর্স হিসেবে এবং প্রতি তিনটি ইউপির জন্য একটি করে স্ট্রাইকিং ফোর্স মোতায়েন থাকবে।
প্রতি উপজেলায় র‌্যাবের থাকবে দুটি মোবাইল টিম ও একটি স্ট্রাইকিং টিম, প্রতি উপজেলায় বিজিবির দুই প্লাটুন সদস্য থাকবে মোবাইল টিম হিসেবে। আর এক প্লাটুন নিয়োজিত থাকবে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে। আবার উপকূলীয় প্রতি উপজেলার জন্য দুই প্লাটুন কোস্ট গার্ড মোবাইল টিম হিসেবে ও এক প্লাটুন ফোর্স থাকবে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে। চতুর্থ ধাপের ৮৪২ ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন মোট ২৯৫ জন প্রার্থী।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।