ঢাকাসোমবার , ৬ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আবহাওয়া
  3. আমাদের পরিবার
  4. আর্ন্তজাতিক
  5. ইসলামী জীবন
  6. এনায়েতপুর
  7. কক্সবাজার
  8. করোনা আপডেট
  9. খেলাধুলা
  10. চাকরি-বাকরি
  11. জাতীয়
  12. নাগরিক সংবাদ
  13. পাঁচমিশালি
  14. বরিশাল বিভাগ
  15. বাংলাদেশ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সিরাজগঞ্জে অনলাইনে প্রাথমিক শিক্ষকদের বদলী প্রক্রিয়ায় জটিলতা: নিরসনে নেই উদ্যোগ

যুগের কথা ডেস্ক
জানুয়ারি ১৩, ২০২৩ ২:১৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সিরাজগঞ্জ প্রাথমিক শিক্ষকদের অনলাইনে বদলি প্রক্রিয়া নিয়ে বিপাকে পড়েছে বদলি ইচ্ছুক শিক্ষক শিক্ষিকারা। অনলাইনে শূন্য পদ দেখালেও জেলা ও উপজেলা শিক্ষা অফিসে জারী করা নোটিশ বোর্ড বলছে নির্দিষ্ট তিনটি স্কুলে শূন্য পদ নেই। আর এই তিনটি স্কুলে যারা আবেদন করেছেন, তাদের আবেদন বাতিল করছেন কর্তৃপক্ষ বলে  অভিযোগ ভূক্তভোগীদের। যদিও বদলির সকল প্রক্রিয়া বর্তমানে অনলাইনে করা হচ্ছে গত দুই বছর ধরে। জেলা শিক্ষা অফিসের গাফিলতির কারনেই এমন বিপাকে পড়েছেন বলেও অভিযোগ ভূক্তভোগীদের।

খোঁজ নিয়ে জানাযায়, চলতি মাসের ৩ জানুয়ারী থেকে ৮ জানুয়ারী পর্যন্ত সদর উপজেলার প্রাথমিক স্কুল গুলোতে শিক্ষক শিক্ষিকাদের বদলির জন্য অনলাইনে আবেদনের  তারিখ নির্ধারণ করা হয়। প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ডের সার্ভারের এই ঠিকানায় বদলির আবেদন করেন প্রার্থীরা। অনলাইনে বদলির জন্য সদরের যেকোন তিনটি স্কুলে শুণ্য পদের চয়েজ করে আবেদন ও সাথে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের কপি দেন আবেদনকারীরা। এরপর অনলাইন থেকে প্রার্থীর দরখাস্ত সঠিক ভাবে জমা হয়েছে এই মর্মে তাদের সাইড থেকে কপি দেওয়া হয়। এরপরে সেই কপি নিয়ে ও কাগজ পত্রের মূল কপি সহ উপজেলা শিক্ষা অফিসে জমা দেন আবেদনকারীরা। কিন্তু স্থানীয় কর্তৃপক্ষ নির্দিষ্ট তিনটি স্কুলের বিপরীতে আবেদন করা প্রার্থীদের আবেদন বাতিল করে দেন বলে অভিযোগ করেন আবেদনকারীরা। আবেদনকারীরা জানান, অনলাইনে শুণ্যপদ দেখানোর কারনে তারা যথাযথ নিয়ম মেনে আবেদন করেছেন। কিন্তু হঠাৎ করে স্থানীয়ভাবে তাদের আবেদন বাতিল করায় তারা বিপাকে পড়েছেন। এখন নতুন করে আবেদন করারও সুযোগ নেই।

এদিকে সকল কিছু ঠিক থাকলেও বিপত্তি বাধে উপজেলা শিক্ষা অফিসে টানানো একটি নোটিশ নিয়ে। নোটিশে নির্দিষ্ট তিনটি স্কুলে সমস্য থাকার কারনে এই সকল স্কুলের বিপরীতে আবেদন না করতে অনুরোধ করা হয়েছে।

কিন্তু বদলি আবেদনকারীদের জানান, তারা অনেকেই অনলাইনে খোঁজ খবর রাখলেও স্থানীয় অফিসে সময়ের কারনেই যাওয়া হয়না। যে কারনে স্থানীয়ভাবে লাগানো নোটিশ সম্পর্কে তারা অবগত নন। তাই এমন পরিস্থিতির সুষ্টু সমাধান চেয়েছেন তারা। একই সাথে অনলাইনে বিভ্রান্তিমূলক তথ্য প্রচার করায় এখন বিপাকে পড়েছে আবেদনকারীরা। এমন অবস্থায় সাধারণ শিক্ষক শিক্ষিকাদের প্রশ্ন জাগে বদলি প্রক্রিয়াটি নিয়ে। যদি স্কুল তিনটিতে সমস্যা থাকে তবে সিরাজগঞ্জ অফিস থেকে কেন তা আগে থেকে জানানো হলো না প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে। আর কিভাবেই বা অধিদপ্তর থেকে এমন ভুলে ভরা অনলাইন প্রক্রিয়া করা হলো। এমন অবস্থায় অনলাইনে বলদির প্রক্রিয়ায় জেলা শিক্ষা অফিস ও অধিদপ্তরের কার্যক্রম কতটা নির্ভুল সমন্বয় পূর্ন তা এবিষয়টিতেই প্রতিয়মান হয়।

এদিকে জেলা শিক্ষা অফিসে খোজ নিয়ে জানাযায়, শিক্ষা অফিস থেকে জানানো হয়েছে নির্দিষ্ট তিনটি স্কুলে বদলী প্রক্রিয়া চলমান থাকলে আগামীতে আরো নতুন জটিলতা তৈরী হবে। সেটি নিরসন করতেই এই স্কুলগুলোতে যারা আবেদন করছেন, তাদের আবেদন বাতিল করছে কর্তৃপক্ষ। তবে আবেদনকারীরা একেক জন তিনটি করে স্কুল পছন্দের তালিকা দিলেও শুধুমাত্র নোটিশকৃত স্কুলের একটির নাম থাকলেই আবেদনটি গ্রহন করছেন না স্থানীয় কর্তৃপক্ষ।  

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নাইয়ার সুলতানা জানান, অনলাইন বদলীর সিস্টেমে স্থানীয়ভাবে এডিট করার কোন সুযোগ নেই। তাই নোটিশ বোর্ডে দেয়া র্নির্ধারিত স্কুলগুলোতে যারা আবেদন করেছেন। তাদের আবেদনগুলো বদলী কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো যাচ্ছেনা। তবে বিষয়টির জটিলতা নিরসনে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করা হচ্ছে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।