ঢাকামঙ্গলবার , ৫ই মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আবহাওয়া
  3. আমাদের পরিবার
  4. আর্ন্তজাতিক
  5. ইসলামী জীবন
  6. এনায়েতপুর
  7. কক্সবাজার
  8. করোনা আপডেট
  9. খেলাধুলা
  10. চাকরি-বাকরি
  11. জাতীয়
  12. নাগরিক সংবাদ
  13. পাঁচমিশালি
  14. বরিশাল বিভাগ
  15. বাংলাদেশ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রায়গঞ্জে নৌকার বিরোধিতাকারী রবিন এখন উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি

যুগের কথা ডেস্ক
মে ১৪, ২০২৩ ১২:৪৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

যুগের কথা প্রতিবেদক: সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রকাশ্যে নৌকার বিরোধিতাকারী ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থক রবিন সরকারকে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি দায়িত্ব দেওয়ায় উপজেলাজুড়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনার ঝড়।

রবিন সরকাকে সভাপতির দায়িত্ব দেওয়ায় উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
রায়গঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিন
সরকার নৌকার বিরোধিতাকারী হিসেবে সাবেক উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের করা মামলার এজাহারভুক্ত আসামিও ছিলেন। এছাড়াও রবিন সরকার বিএনপি পরিবারের সন্তান বলেও অভিযোগ রয়েছে। তার চাচা মো: ফরিদুল ইসলাম ধানগড়া ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক
সদস্য সচিব ও ৮নং ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক।
জানা যায়, ২০২০ সালের ১ ফেব্রুয়ারি উপজেলার
চান্দাইকোনা কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত ছাত্র সমাবেশের মধ্যে দিয়ে প্রার্থীরা তাদের জীবন বৃত্তান্ত পেশ করেন এবং নৌকার বিরোধিতাকারী ও এজাহারভুক্ত আসামি রবিন সরকারকে
সম্মেলনে অংশগ্রহন না করতে দিয়ে গঠনতন্ত্রের মধ্যে দিয়ে সম্মেলন করার জন্য অনুরোধ জানান নেতাকর্মীরা।
গত মঙ্গলবার (০৯ মে) এই কমিটি ঘোষণার পর ১০ মে বুধবার সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ থেকে পদত্যাগ করেন সাব্বির আহমেদ স্বাধীন।
শুধু তাই নয়, নৌকার বিরোধিতাকারী হিসেবে বিতর্কিত আ.লীগ নেতার করা মামলার এজাহারভুক্ত আসামিও।

গত মঙ্গলবার (০৯ মে) বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সিরাজগঞ্জ জেলা শাখার প্যাডে আগামী এক বছরের জন্য রায়গঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের আংশিক কমিটি ঘোষণা করেন জেলা ছাত্রলীগের
সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক।
কমিটিতে রবিন সরকারকে সভাপতি মোঃ সোয়েব আক্তারকে সাধারণ সম্পাদক ও মোঃ সাব্বির আহমেদ স্বাধীনকে সাংগঠনিক সম্পাদকের নাম
ঘোষণা করা হয়।

এবিষয়ে, সাব্বির আহমেদ স্বাধীন বলেন, গত ৯ মে রায়গঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের আংশিক কমিটি দেওয়া হয়। রবিন সরকারকে সভাপতি সোয়েব আক্তারকে সাধারণ সম্পাদক ও আমাকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে কমিটির ঘোষণা দেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক। সভাপতি রবিন ও সাধারণ সম্পাদক সোয়েব আক্তারের পরিবারের সদস্যরা বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। আমি বিএনপির পরিবার ও নৌকার বিরোধিতাকারীদের সাথে ছাত্রলীগের রাজনীতি করতে পারবো না। তাই কমিটির একদিন পরে ১০মে সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ থেকে পদত্যাগ করেছি।
রায়গঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা আবুল কামাল আজাদ বলেন, আওয়ামীলীগের রাজনীতির জন্য
আমার আপন ভাই প্রাণ দিয়েছে।
রায়গঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের সময় রবিন সরকার নৌকার বিরোধিতা করেন। এখন আদর্শে গড়া ছাত্রলীগের রায়গঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে এটা খুবই
দুঃখজনক।
তিনি আরো বলেন, শুধু রবিন সরকারই নয় নবনির্বাচিত তাকে বঙ্গবন্ধুর সংগঠন বাংলাদেশ সাধারণ সম্পাদক সোয়েব আক্তারও বিএনপি পরিবারের সন্তান। আমরা জেলা ছাত্রলীগের কাছে জোর দাবী জানাচ্ছি এই কমিটি দ্রুত বাতিল করা হোক। নবনির্বাচিত রায়গঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সোয়েব আক্তারের মুঠোফোনে কল করলে তার ফোন অন্য একজন রিসিভ করে বলেন, ভাই একটু দূরে রয়েছে, এখন কথা বলতে পারবে না।
নবনির্বাচিত রায়গঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিন সরকার বলেন, আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ মিথ্যা। তখন বিদ্রোহী প্রার্থীর সঙ্গে আমি রাজনীতি করতাম যার ফলে এই অভিযোগগুলো উঠেছে। এছাড়াও এমন অনেকেই আছেন যারা বিদ্রোহী প্রার্থীর হয়ে কাজ করলেও আজ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের পদ পদবী পেয়েছেন। মামলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মামলায় আমার মতো অনেকের নামই এসেছিল। তবে নাম আসলেও মামলাটি মিথ্যা প্রমান হয়ে এখন মামলাটি শেষ হয়ে গেছে।
এব্যাপারে সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে একাধিকবার তাদের মুঠোফোনে যোগাযোগ করলেও তাদের পাওয়া যায়নি।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।